যুক্তরাজ্যে প্রথমবারের মত জজ হলেন হিজাবধারী মুসলিম

যুক্তরাজ্যের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো জজ হলেন হিজাবধারী একজন মুসলিম নারী। ৪০ বছর বয়সী রাফিয়া আরশাদ গত সপ্তাহে মিডল্যান্ডস সার্কিটের ডেপুটি জেলা জজ হিসেবে নিযুক্ত হন। মাত্র ১১ বছর বয়সে দেখা আইনে ক্যারিয়ার গড়ার স্বপ্ন ৩০ বছর পর পূর্ণতা পেল। তবে এর জন্য তাকে অনেক কাঠঘর পোহাতে হয়েছে। খবর মেট্রো ডট কমের।

সফলতার চূড়ায় আরোহণ করে তরুণ মুসলমানদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, কোন স্বপ্ন নির্দিষ্ট থাকলে তারা তাদের মনকে একনিষ্ঠ করে যেভাবে হোক তা অর্জন করতে পারে। তিনি আরও বলেন, ‘এটি অবশ্যই আমার চেয়ে বড়, আমি জানি এটি আমার সম্পর্কে নয়। এটি কেবলমাত্র মুসলিম মহিলাদের জন্য নয়, সমস্ত মহিলাদের জন্য এটি গুরুত্বপূর্ণ, তবে এটি মুসলিম মহিলাদের জন্য বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ।

এই সংবাদ যারা হিজাব পরিধান করে তাদের জন্য খুবই আনন্দঘন উল্লেখ করে তিনি বলেন, অনেকদিন চেষ্টার পর আমি জয়ী হয়েছি। এতে আমার চেয়ে আমার আশপাশে থাকা হিজাবধারী অন্যান্য মুসলিম মহিলা এবং আমার পরিবার বেশি খুশি হয়েছে। কারণ তারা এটির জন্য খুবই দুশ্চিন্তাগ্রস্ত ছিল। কেননা তারা ভেবেছিল, আমি ব্যারিস্টার হয়ে উঠতেও সক্ষম হবেন না। তাই বিচারক হওয়ার পথ যেন ছেড়ে দিই।’

যদিও রাফিয়ার পিছনে রয়েছে ১৭ বছরের ক্যারিয়ারের একটি পাওয়ার হাউস। তিনি বলেছেন, এখনও তাকে বৈষম্য এবং কুসংস্কারের মুখোমুখি হতে হয়। মিডল্যান্ডসের বিচারকদের মধ্যেও এই বৈষম্য কাজ করছে। ওয়েস্ট ইয়র্কশায়ারে বেড়ে ওঠা রাফিয়ার কর্মজীবনের জীবনের সবচেয়ে গভীর মুহূর্তগুলির মধ্যে একটি অভিজ্ঞতা হলো- যখন তাকে তার নিজের পরিবারের সদস্য দ্বারা স্কার্ফ পড়তে বাধা দেয়া হয়েছে। ইনস অফ কোর্ট স্কুলের স্কলারশিপের জন্য একটি সাক্ষাত্কারে তার হিজাব না পরিধান করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল।

২০০১ সালে আইন অফ ল’তে নাটকীয়ভাবে সাফল্য লাভ করেন তিনি। এরপর আত্মীয় থেকে শুরু করে বাড়ির সদস্যরা তাকে সাক্ষাৎকারে স্কার্ফ পরিধান করতে নিষেধ করেন। কিন্তু জীবনের সাথে মিল খুঁজতে গিয়ে তিনি স্কার্ফ ছেড়ে দেননি। তিনি বলেছিলেন, ‘আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম যে আমি আমার মাথার স্কার্ফ পরে যাব। কারণ আমার পেশা অনুসরণ করার জন্য যদি আমাকে আলাদা ব্যক্তি হতে হয় তবে এটি আমার ইচ্ছা ছিল না। তাই আমি স্কার্ফ পরিধান করেছিলাম। আর আমি সাক্ষাত্কারে সফলও হয়েছি। আমাকে যথেষ্ট বৃত্তি দেওয়া হয়েছিল। আমি মনে করি এটি সম্ভবত আমার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে গভীরতম পদক্ষেপগুলির মধ্যে একটি ছিল।

লন্ডনে প্রশিক্ষণের পরে রাফিয়াকে ২০০২ সালে ডেকে পাঠানো হয়েছিল এবং নটিংহামে শিক্ষা লাভে সক্ষম হয়েছিলেন। ২০০৪ সালে সেন্ট মেরির ফ্যামিলি ল চেম্বারে যোগদান করেছিলেন। গত ১৫ বছর ধরে তিনি প্রাইভেটে অনুশীলন করেছেন আইনী শিশু, জোরপূর্বক বিবাহ বিচ্ছেদ এবং ইসলামী আইন সংক্রান্ত যে কোনও মামলা নিয়ে। এছাড়া যুক্তরাজ্যে ইসলামী পারিবারিক আইনে শীর্ষস্থানীয় পাঠ্যের লেখকও হয়ে উঠেছেন রাফিয়া।

Facebook Comments
custom_html_banner1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *