অ’ক্সফোর্ডের তৈরি সেই ভ্যা’কসিনের আ’শার খবর।

যু’ক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীদের তৈরি নভেল ক’রোনাভা’ইরাসেের একটি ভ্যাকসিন বানরের দেহে প্রয়োগে আশাব্যঞ্জক ফল মিলেছে।মানবদেহে পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করা এই ভ্যাকসিন বানরের ও’পর কেমন প্রতিক্রিয়া দেখায় সেটা জানতে পরীক্ষা চা’লানো হয়।

ভ্যা’কসিন দেয়ার পর বানরের শরীরে ক’রোনাভা’ইরাসে ব্যাপকভাবে প্রবেশ করানো হলেও সেটি সং’ক্র’মণ ঘটাতে পারেনি বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।গবেষকরা সম্ভাব্য ক’রোনাভা’ইরাসে ভ্যাকসিনটি স্বল্প সংখ্যক বানরে পরীক্ষা করে আশাব্যঞ্জক লক্ষণ দেখতে পেয়েছেন। ছয়টি রিসাস মাকাককে বানরের শরীরে বর্তমানে মানুষের মধ্যে পরীক্ষা করা ভ্যাকসিনের অর্ধ ডোজ দেওয়া হয়েছিল।

এ’ছাড়া, ইঁদুরের শরীরের ভ্যাকসিনটি প্রয়োগ করা হয়েছে। সেখানে দেখা গেছে কয়েকটি প্রা’ণী টিকা দেওয়ার ১৪ দিনের মধ্যে ভাই’রাসটির বি’রুদ্ধে অ্যান্টিবডি তৈরি করেছিল এবং ২৮ দিনের মধ্যে সবকটির মধ্যেই অ্যান্টিবডি তৈরির প্রমাণ পাওয়া যায়।গবেষণা প্রতিবেদন অনুসারে, একক টিকাদানের ডোজও প্রা’ণীগুলোর ফুসফুসের ক্ষ’তি প্রতিরোধে কার্যকর ছিল।

ক’রোনাভা’ইরাসেের সং’ক্র’মণে যে অঙ্গগুলো মা’রাত্মকভাবে আ’ক্রান্ত হতে পারে টিকাদানের পরে সেগুলোতে ক্ষ’তি হতে দেখা যায়নি।গবেষকরা আরো দেখতে পেয়েছেন যে, নিম্ন শ্বাসযন্ত্রের সিস্টেমে ভাই’রাসের সং’ক্র’মণ উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছে। শ্বাস নালীর নীচে ভাই’রাসের প্রতিলিপি তৈরি প্রতিরোধের করতেই টিকা দেওয়া হয়।

ত’বে ফু’সফুসে ভাই’রাসের বংশ বিস্তার রোধ করা গেলেও নাক থেকে ভাইরাল বর্ষণ কমানো লক্ষ্য করা যায়নি।লন্ডন স্কুল অফ হাইজিন অ্যান্ড ট্রপিকাল মেডিসিনের ফার্মাকোসপিডেমিওলজি বিভাগের অধ্যাপক স্টিফেন ইভান্স বলেছেন, ‘ফলাফলগুলো খুবই স্পষ্টভাবে একটি সুসংবাদ দিচ্ছে। আমার কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সন্ধানটি হল ভাইরাল লোড এবং পরবর্তী নিউমোনিয়ার ক্ষেত্রে যথেষ্ট কার্যকারিতার সংমিশ্রণ।

তবে রো’গ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর কোনো প্রমাণ নেই।তিনি আরো বলেন, যে মাকাকের ফলাফলগুলো মানুষের মধ্যে একইভাবে প্রতিফলিত হবে কিনা তা জানা যায়নি, তবে এই ফলাফলগুলো দেখে উৎসাহিত হওয়াই যায়। অক্সফোর্ডে তৈরি এই ভ্যাকসিনের পরীক্ষা মানুষের মধ্যে সম্পন্ন হওয়ার বি’ষয়ে সতর্ক আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন তিনি।

Facebook Comments
custom_html_banner1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *