অ’স্ত্র ও মা’দক দিয়ে যুবলীগ কর্মীকে ফাঁ’সানোর অ’ভিযোগ।

ফেনীর সোনাগাজীতে গত ১০মে দু’টি অস্ত্র ও ৫০পিছ ইয়াবাসহ আটক হয় উপজেলা যুবলীগ সদস্য ছেরাজুল হক সবুজ (৩৭)। সে উপজেলার মঙ্গলকান্দি ইউনিয়নের লকুর দোকান সংলগ্ন ফকির আহমদের ছেলে।

শনিবার (১৬ মে) স’কালে ফেনী রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে সবুজের স্ত্রী লূৎফুর নাহার বলেন, মঙ্গলকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন বাদলের সাথে রাজনৈতিক দ্বন্ধের কারনে সবুজকে দুটি আগ্নেয়াস্ত্র ও ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানো হয়েছে।তিনি আরো বলেন, পূর্ব শত্রুতার জেরে আটক হওয়ার ৪দিন আগে বাড়ীর সামনে আমার স্বামীকে হত্যার চেষ্টা করেছিল বাদল চেয়ারম্যান ও তার সহযোগীরা।

ব্য’র্থ হয়ে ৪দিন পর বাদল চেয়ারম্যান ও সোনাগাজী থানার ওসি সাজেদুল ইসলাম যোগসাজস করে ১০মে রাতে আমার ঘরে হামলা করেন। এ সময় আমার স্বামীকে ব্যপক মারধর করে থানায় নিয়ে যান। সারারাত থানায় পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করেন। পরদিন সকালে গুরুতর আহতাবস্থায় একটি পিস্তল, একটি পাইপগান ও ৫০পিছ ইয়াবা উদ্ধার দেখিয়ে ১০টি মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে কোর্টে চালান করেন।

প’রদিন রাতে বাড়ীতে এসে আমি এবং আমার পরিবারের সবাইকে গ্রামছাড়ার হুমকি দেয় ওসি ও চেয়ারম্যান বাদল। আমার পরিবারের সবাইকে সবুজের মামলা পরিচালনা করতে বারন করে এবং আরো ১০টি মামলায় ফাঁসানোর হুমকি দেয়। সে থেকে আমি গ্রাম ছাড়া হয়ে আমার বাপের বাড়ীতে অবস্থান করছি। ওই বাদল চেয়ারম্যান এর আগেও থানা পুলিশ ম্যানেজ করে আমার স্বামীকে অস্ত্র ও মাদক মামলায় ফাঁসিয়েছে।

তি’নি পরিবারের নিরাপত্তা ও স্বামীর মুক্তির জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন। সংবাদ সম্মেলনে সবুজের মেয়ে সিদরাতুল মুনতাহা ও লুৎফুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।পুলিশ অস্ত্র ও মাদক  ব্যাপারে ওসি সাজেদুল ইসলাম বলেন, তার বাড়ীতে অভিযান চালিয়ে অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। হুমকি দেয়ার বিষয়ে ওসি বলেন, কারাবন্দি আসামীর পরিবারকে হুমকি দেয়ার প্রশ্নই আসেনা।

Facebook Comments
custom_html_banner1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *