1. ashrafali.sohankg@gmail.com : aasohan :
  2. alireza.kg2014@gmail.com : Ali Reza Sumon : Ali Reza Sumon
  3. hrbiplob2021@gmail.com : News Editor : News Editor
বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১, ০৪:২৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:-
জাতীয় স্লোগান হিসেবে ‘জয় বাংলা’ ব্যবহারের নির্দেশঃ হাইকোর্ট কিশোরগঞ্জে কোরবানির ডিজিটাল পশুর হাট কুড়িগ্রাম জেলা যুবলীগের উদ্যোগে অন্ধ প্রতিবন্ধীদের মাঝে নগদ টাকা ও খাদ্য বিতরণ কুড়িগ্রাম জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে বিনামূল্যে শাক-সবজি বাজার উ‌দ্বোধন করিমগঞ্জ থেকে গাঁজা ও নগদ অর্থ’সহ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‍্যাব আশরাফ আলী সোহান একজন তরুন উদ্যোক্তা সব্যসা‌চী লেখক ও ক‌বি ‌সৈয়দ শামসুল হ‌কের সমাধী‌তে কুড়িগ্রাম জেলা ছাত্রলী‌গের শ্রদ্ধা বাংলা’র শিক্ষক গাইছেন হিন্দিতে! কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা বিএনপি’র যুগ্ম আহবায়ক দানিস আর নেই হিয়া ইলেক্ট্রনিক্সকে অবাঞ্ছিতকরন প্রসঙ্গে কিশোরগঞ্জে বিশাল আকৃতির ষাঁড় নাম তার ভাটির রাজা; কুরবানিতে বিক্রয়ের জন্য প্রস্তুত

ক’রোনা নিয়ে যে পরামর্শ দিলেন কাবার ইমাম।

রিপোর্টার:
  • সর্বশেষ আপডেট : শুক্রবার, ২৬ জুন, ২০২০
  • ৯০ সংবাদটি দেখা হয়েছে

প্রা’ণঘাতী ক’রোনাভা’ইরাসে আতঙ্কিত না হয়ে ধৈর্য ও আল্লাহর সাহায্য লা’ভের শরয়ী দিকনির্দেশনা দিয়েছেন কা’বা শরিফ ও মসজিদে নববির প্রধান ইমাম শায়খ সুদাইসি।

মক্কার ম’সজিদে হা’রামের সাপ্তাহিক ধর্মীয় বয়ানে করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে তিনি মুসলিম উম্মাহর প্রতি ন’সিহত পে’শ করতে গিয়ে কুরআনের একাধিক উদ্ধৃতি তুলে ধরেন।

আ’বল্লাহ তা’আলা বলেন-– ‘অবশ্যই আমি তোমাদের পরীক্ষা করব কিছুটা ভয়, ক্ষুধা, মাল ও জানের ক্ষতি এবং ফল-ফসল বিনষ্টের মাধ্যমে। তবে ধৈ’র্যধারণকারীদের জ’ন্য রয়েছে সুসংবাদ।’

(সুরা বা’কারা : আয়াত ১৫৫)– ‘(হে নবি!) আপনি বলুন, আমাদের কাছে কিছুই পৌঁছবে না। কিন্তু যা আল্লাহ আমাদের জন্য রেখেছেন; তিনি আমাদের কা’র্যনির্বাহক। আল্লাহর ওপরই মুমিনদের ভরসা করা উচিত।

’ (সুরা তাওবা : আয়াত ৫১)অ’তঃপর তিনি বলেন, ‘আল্লাহ তাআলা মানুষকে নানা মুসিবত দিয়ে বিভিন্নভাবে পরীক্ষা করেন। এটি আল্লাহর প্রতি বি’শ্বাসের বিপরীত কিছু নয়।

একজন মু’সলিম সব স’ময় আল্লাহর সিদ্ধান্ত এবং ফয়সালার প্রতি ঈমান রাখে। তিনি বলেন, ‘ভয়াবহ এ ক’রোনাভা’ইরাসে অধিকাংশ মানুষ ৩ ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। তাদের অবস্থা এমন-– একটি পক্ষ ক’রোনাভা’ইরাস থেকে সতর্কতায় অসংখ্য পরিকল্পনা করে ঠিকই কিন্তু আল্লাহর ওপর ভরসা করে না। এটি মানুষের বাড়াবাড়ি।

– একটি প’ক্ষ কোনো প’দক্ষেপ বা পরিকল্পনা গ্রহণ করে না, শুধু আ’ল্লাহর ওপর ভরসা করে বসে থাকে। এটি একেবারেই ছাড়াছাড়ি। বাস্তবে এটি সু’ন্নাহবিরোধী কাজও বটে।

– একটি প’ক্ষমধ্যম প’ন্থা অবলম্বন করে। তাদের বৈশিষ্ট্য হলো-তারা আল্লাহর ওপর পরিপূর্ণ আস্থা এবং বিশ্বাস রাখে। পাশাপাশি ক’রোনাভা’ইরাস থেকে সু’রক্ষার নিমিত্তে পূর্ণ সতর্কতা নিয়ে নানা উপায়ও অবলম্বন করে।’-

এ ব্যা’ধিটি যাতে ছ’ড়িয়ে পড়তে না পারে সে বিষয়ে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বনে সৌদি সরকার পরিচালিত নীতিও এটি।শায়খ সুদাইসি মধ্যমপন্থা নীতির অবলম্বনে এবং ক’রোনা ভা’ইরাস থেকে সতর্ক থাকতে হজরত ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহুর বর্ণিত একটি হাদিস তুলে ধরেন।

রা’সুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘যদি তোমরা ম’হামারির (নতুন নতুন রোগ-ব্যাধির) কো’নো সংবাদ শোন, তো সেখানে (আক্রান্ত অঞ্চলে) তোমরা প্রবেশ থেকে বিরত থাক।

আ’র যদি কোনো শ’হরে বা নগরে কেউ সে মহামারিতে আক্রান্ত হয়, তো সেখান থেকে তোমরা বের হয়ে (অন্য কোনো অঞ্চলে) যেয়ো না।’ (বুখারি)রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের এ হাদিসটি বর্ণনার মূল উদ্দেশ্য ছিল যাতে সংক্রামক কোনো ব্যাধি ছড়িয়ে না পড়ে, সেদিকে লক্ষ্য রাখা এবং সতর্কতা অবলম্বন করা।

এ’ক ব্য’ক্তি থে’কে অন্য ব্যক্তির মাঝে যেন সংক্রামক এ ব্যাধি না ছড়িয়ে পড়ে সেদিকেও সতর্ক থাকা। যেহেতু প্রিয় নবি বলেছেন, ‘সংক্রামক ব্যাধি কুলক্ষণ নয়।’ বরং এটি থেকে সতর্ক থাকতে হবে। হাদিসের এ বর্ণনা মানুষের নানা অজ্ঞতাকে প্রত্যাখ্যান করে। জাহেলি যুগের একটি অজ্ঞতা ছিল এমন যে-

‘তা’রা সং’ক্রমণ ব্যাধির ব্যাপারে নিজেদের মানুষ বা রোগীকে দায়ী করত। ব্যাপারটি আসলে এমন নয়, এ সবকিছু আ’ল্লাহর হুকুমেই সম্পাদিত হয়।’এ কা’রণেই রাসূ’ল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, ‘সিংহের কাছ থেকে পলায়নের মতো তুমি কুষ্ঠ রোগী থেকে পলায়ন কর।’

(মুসনাদে আহমদ) প্রি’য় ন’বির এ হাদিস বর্ণনার উদ্দেশ্য হলো- যে কোনো মহামারিতে (নতুন নতুন রোগ-ব্যাধিতে) যাতে মানুষ সতর্কতা বা সুস্থতার উপায় অবলম্বন করে। শায়খ সুদাইসি বলেন, ‘ক’রোনা ভা’ইরাসের কারণে বিভিন্ন স্থানে পরিলক্ষিত হচ্ছে যে, ‘এ ভাইরাস মোকাবিলায় কিছু মানুষ মসজিদ থেকে পলায়ন করছে।

এটি মা’নুষের মা’নবিক দুর্বলতা। তবে মানুষের মনে রাখতে হবে যে-আল্লাহর আশ্রয় থেকে এক মুহূর্ত প’লায়ন করার বা তার অমুখাপেক্ষী হওয়ার সুযোগ নেই।’

যেমনি আ’ল্লাহ তাআলা হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সা’লামের উদ্ধৃতি দিয়ে কুরআনে ঘোষণা করেন, ‘আর যখন আমি অসুস্থ হই, তখন তিনিই আমাকে আরোগ্য দান করেন।’ (সুরা শুআরা : আয়াত ৮০)

কু’রআনের এ আ’য়াত প্রমা’ণ করে যে, মানুষ সুস্থতা লাভে মহান আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করলে আল্লাহ তাআলা তাকে অ’সুস্থতা থেকে পূর্ণ সুস্থতা দান ক’রবেন।মানুষকে সতর্ক করে দিয়ে শায়খ সুদাইসি বলেন-সবকিছু আল্লাহর হুকুমেই হয়।

যদি ক’রোনাভা’ইরাস প্রতিরোধে পুরো মানবগোষ্ঠী একত্রিত হয়, আর তা’তে আল্লাহর আদেশ, সিদ্ধান্ত ও ফয়সালা না থাকে তবে তা থেকে বাঁচা কো’নোভাবেই সম্ভব নয়।

তাই বা’ন্দাহর জ’ন্য অবশ্য করণীয় হলো- ‘ক’রোনাভা’ইরাস মোকাবিলায় হাদিসের নির্দেশনা অনুসারে সতর্কতা অবলম্বনের পাশাপাশি আল্লাহর স’মীপে ধাবিত হওয়া এবং একমাত্র তাঁর প্রতি ভরসা রাখা।’

শায়খ সুদাইসি ব্যা’হিক উ’পায় অবলম্বন করতে কিছু স্বাস্থ্যবিষয়ক সতর্কতার উপদেশ দেন। তিনি বলেন, ‘মানুষের ভয়ভীতি, শঙ্কা বা আতঙ্কের ফলে এ’কে অ’পরের সঙ্গে মুসাফাহা করা, মসজিদে আসা বন্ধ করে দিতে চলেছে।

বরং তা না করে ক’রোনা সতর্কতায় বাহ্যিকভাবে এ উপায়গুলো অবলম্বন করতে পারে-– নিজেদের জীবাণুমুক্ত রাখা।– দুই হাত ধোয়া– অপরিচ্ছন্নতা ও আবর্জনার মাধ্যমে যাতে সং’ক্রামক ব্যাধি আপনার দিকে না আসতে পারে সেবিষয়ে প’রিচ্ছন্ন থাকা এবং এ ব্যাপারে সতর্কতা অবলম্বন করা।

স’তর্কতামূলক এ’সব ব্যব’স্থাপনা অবলম্বন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সু’ন্নাহর একটি অংশ। এটি আল্লাহর ওপর ভরসার সঙ্গেও সাংঘর্ষিক নয়।

ক’রোনাসহ ন’তুন ন’তুন সং’ক্রামক রোগব্যাধি ও মহামারি দেখা দিলে তা থেকে আশ্রয় লাভে আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করা এবং ধৈর্যধারণ করা। বিশেষ করে দুটি দোয়ার মাধ্যমে আল্লাহর কাছে আশ্রয় চাইতে বলেছেন বিশ্বনবি-

اَللَّهُمَّ اِنِّىْ اَعُوْذُ بِكَ مِنَ الْبَرَصِ وَ الْجُنُوْنِ وَ الْجُذَامِ وَمِنْ سَىِّءِ الْاَسْقَامِউচ্চারণ : আল্লাহুম্মা ইন্নি আউজুবিকা মিনাল বা’রাচি ওয়াল জুনুনি ওয়াল ঝুজামি ওয়া মিন সায়্যিয়িল আসক্বাম।’ (আবু দাউদ, তিরমিজি)অর্থ : ‘হে আল্লাহ! আপনার কাছে আমি শ্বেত রোগ থেকে আশ্রয় চাই।

মা’তাল হ’য়ে যাওয়া থেকে আশ্রয় চাই। কুষ্ঠু রোগে আক্রান্ত হওয়া থেকে আশ্রয় চাই। আর দুরারোগ্য ব্যাধি (যেগুলোর নাম জানি না) থেকে আপনার আশ্রয় চাই।اللَّهُمَّ إِنِّي أَعُوذُ بِكَ مِنْ مُنْكَرَاتِ الأَخْلاَقِ وَالأَعْمَالِ وَالأَهْوَاءِ وَ الْاَدْوَاءِউচ্চারণ : ‘আল্লাহুম্মা ইন্নি আউজুবিকা মি’ন মুনকারাতিল আখলাক্বি ওয়াল আ’মালি ওয়াল আহওয়ায়ি, ওয়াল আদওয়ায়ি।

’অর্থ : হে আল্লাহ! নি’শ্চয় আ’মি তোমার কাছে খারাপ (নষ্ট-বাজে) চরিত্র, অন্যায় কাজ ও কুপ্রবৃত্তির অনিষ্টতা এবং বাজে অসুস্থতা ও নতুন সৃ’ষ্ট রো’গ বালাই থেকে আশ্রয় চাই।’ (তিরমিজি)

সকাল-সন্ধ্যার বি’শেষ দো’য়াহজরত উসমান ইবনে আফ্‌ফান রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, ‘রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘প্রতিদিন ভোরে ও প্রতি রাতের সন্ধ্যায় যে কোনো বান্দা এ দোয়াটি তিনবার পাঠ করবে, কোনো কিছুই তার অনিষ্ট/ক্ষতি করতে পারবে না-

بِسْمِ اللَّهِ الَّذِي لاَ يَضُرُّ مَعَ اسْمِهِ شَيْءٌ فِي الأَرْضِ وَلاَ فِي السَّمَاءِ وَهُوَ السَّمِيعُ الْعَلِيمُ

উচ্চারণ : বিসমিল্লাহিল্লাজি লা ইয়াদুররু মাআসমিহি শাইয়্যুন ফিল আরদ্বি ওয়ালা ফিস্সামায়ি ওয়া হুয়াস্‌সামিউল আলিম।’ (তিরমিজি)অর্থ : ‘ওই আল্লাহ তাআলার নামে, যাঁর নামের বরকতে আসমান ও জমিনের কোনো কিছুই কোনো অ’র্নিষ্ট করতে পারে না। তিনি সর্বশ্রোতা, সর্বজ্ঞানী।’

খবরটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরও খবর

All rights reserved © 2021 Newsmonitor24.com
Theme Customized BY IT Rony