জেনে নিন করোনা ভাইরাসের নতুন নতুন উপসর্গ গুলি!

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া মহামারী COVID 19 ভাইরাস সংক্রমণের উপসর্গ ভাইরাস আক্রান্ত হবার ১ থেকে ১৪ দিনের মধ্যেই দেখা যায়। করোনা ভাইরাস রোগের (COVID-19) সব থেকে সাধারণ উপসর্গগুলি হল জ্বর, ক্লান্তিভাব এবং শুকনো কাশি।

বিশেষ চিকিৎসা না করিয়েও বেশির ভাগ মানুষ (প্রায় ৮০%) সুস্থ হয়ে যেতে পারেন। খুব কম ক্ষেত্রেই এই অসুখ গুরুতর কিংবা মারাত্মক হতে পারে। বয়স্ক ব্যক্তিরা এবং অন্যান্য রোগে (যেমন, হাঁপানি, ডায়াবেটিস, বা হৃদরোগ) আক্রান্ত ব্যক্তিদের করোনা ভাইরাস রোগে আরও মারাত্মকভাবে সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি থাকতে পারে। তবে ভাইরাসটি যেমন বিভিন্ন সময় তার গঠনগত পরিবর্তন এনেছে সাথে সাথে পরিবর্তন এসেছে এই ভাইরাস সংক্রমণের উপসর্গ গুলিতে।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ হওয়ার ২ থেকে ১৪ দিনের মধ্যে নতুন ছয়টি উপসর্গ দেখা দিতে পারে। এগুলো হলো- শরীর ঠান্ডা হয়ে যাওয়া, বারবার কাঁপুনি, পেশী ব্যথা, মাথা ব্যথা, গলা ব্যথা, স্বাদ ও ঘ্রাণশক্তি হারানো। রোগীদের কাছ থেকে রোগের ইতিহাস নিয়ে চিকিৎসকরা এই নতুন উপসর্গ গুলি সম্পর্কে জানতে পেরেছেন।

বিশেষত, মার্চের মাঝামাঝি সময় থেকেই ইউরোপ ও আমেরিকার আক্রান্তরা স্বাদ ও গন্ধ না নিতে পারার কথা জানান। ব্রিটেনের কয়েকজন নাক, কান ও গলার চিকিৎসক জানান, প্রাথমিকভাবে কোভিড-১৯ এর উপসর্গ হিসেবে স্বাদ ও ঘ্রাণশক্তি হারানোকে বিবেচনা করা যেতে পারে। একজন রোগী বলেন, ‘আমার সারাক্ষণই ক্লান্ত লাগতো। এমনকি বই পড়তে গেলেও ক্লান্ত হয়ে পড়তাম। বিছানা থেকে দুই পা হাঁটলেই টয়লেট। তবুও আমার মনে হতো টয়লেট থেকে আর বিছানায় ফিরতে পারব না। আমি প্রচন্ড ঠান্ডায় কাঁপতাম। তবে, গায়ে জ্বর ছিল না। অনেক রোগীর ফুসফুসে রক্তক্ষরণ দেখা গেছে।
রক্ত জমাট বাঁধার কারণে অনেকে স্ট্রোক করেছেন।

কিছু কিছু ক্ষেত্রে শিশুদের শরীরে র‍্যাশ বা লালচে দাগ দেখা যাচ্ছে, যেগুলো কে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের উপসর্গ হিসেবে ধরা হচ্ছে।তাই শুধু জ্বর, গলা ব্যাথা, সর্দি কাশি ইত্যাদি উপসর্গের উপর নির্ভর না করে নতুন উপসর্গের দিকেও খেয়াল রাখতে হবে। বিশেষ করে স্বাস্থ্যকর্মীদের কে এখন আরো বেশি সতর্ক হতে হবে। প্রত্যেকটি রোগীকেই সাম্ভব্য করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হিসেবে ধরে নিয়েই চিকিৎসা চালাতে হবে। তা না হলে চিকিৎসক, নার্স সহ বিভিন্ন বিভাগের স্বাস্থ্যকর্মী আরো আক্রান্ত হবেন এবং এতে স্বাস্থ্যসেবা আরো ঝুঁকিপূর্ন হয়ে যাবে।

লেখকঃ
ডাঃ মোঃ আবিদুর রহমান ভুঞা
এমডি-হেপাটলজি
আরপি-মেডিসিন
শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল

Facebook Comments
custom_html_banner1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *