দু’জনের সা’থে প্রেম করতে গিয়ে প্রান গেলো ৯ম শ্রেনীর ছাত্রীর।

চাঁ’দপুরে ৯ম শ্রেনীর স্কুল ছাত্রী কাকলি হ’ত্যার র’হস্য উদঘাটন ও ঘা’তককে গ্রে’প্তার করেছে পু’লিশ।

এ’কই স’ঙ্গে নি’হত ছাত্রীর বিচ্ছিন্ন মাথা এবং হ’ত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ধারাল চাকু উ’দ্ধার করা হয়েছে।

মূ’লত তৃ’মুখী প্রেমের সম্পর্ককে কেন্দ্র করে নি’র্মম এই হ’ত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

শু’ক্রবার রা’ত সাড়ে ১২টায় এমন তথ্য নিশ্চিত করেছেন, মতলব উত্তর থানার ওসি নাসির উদ্দিন মৃধা।

অ’ক্সফোর্ড এ’কাডেমিতে আগে থেকেই হাজির ছিল কাকলীর নতুন প্রেমিকও।

(পু’রাতন এবং ন’তুন- উভ’য় প্রেমিকের পরিচিয় হওয়ার পরে তারা জানতে পারে যে কাকলি তাদের উভ’য়ের সাথেই প্রেম করছে।

তা’রা এর প্র’তিশোধ নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।)সূত্রটি আরো জানায়, গো’য়েন্দারা বিভিন্ন তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে সাইফ উদ্দিনকে গ্রে’প্তার করে এবং পরে সাইফের দেখিয়ে দেওয়া স্থান থেকে কাকলীর বিচ্ছিন্ন মাথা এবং হ’ত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ধারাল চাকু উ’দ্ধার করে পু’লিশ।

ত’বে এ’ই ঘটনায় জ’ড়িত পা’লিয়ে যাওয়া অপর কিশোরকেও খুঁজছে পু’লিশ।

রা’সেল আ’হমেদের ছেলে সাইফ উদ্দিনের।

এ’রই মা’ঝে গত কয়েক মাস আগে কাকলী সাইফ উদ্দিনকে বাদ দিয়ে নতুন করে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে এলাকায় নতুন আসা রাজশাহীর আরেক কিশোরের সঙ্গে।

বি’ষয়টি বু’ঝতে পেরে সাইফ উদ্দিন খুব ঠাণ্ডা মাথায় ওই কিশোরের সঙ্গে সখ্য গড়ে তোলে।

মূ’লত ব্যর্থ প্রেমের প্র’তিশোধ নিতেই তাদের দুজনের মাঝে এই সখ্যতা তৈরি হয়েছিল।

ঘ’টনার স’ত্যতা স্বীকার করে মতলব উত্তর থানার ওসি নাসির উদ্দিন জানান, জে’লা পু’লিশ সুপার মাহবুবুর রহমানের নির্দেশে-মতলব সার্কেলের সহকারী পু’লিশ সুপার আহসান হাবিবের দিক নির্দেশনায় পু’লিশের তিনটি টিম চাঞ্চল্যকর হ’ত্যাকাণ্ডের ক্লু উদঘাটন এবং দ্রুততার সঙ্গে হ’ত্যার প্রকৃত র’হস্য বের করে নিয়ে আসে।

গ্রে’প্তারের প’র সাইফ উদ্দিন নামে এই কিশোর কাকলী হ’ত্যার রোমহর্ষক বর্ণনা দেয় পু’লিশের কাছে।

রা’জশাহী থে’কে আসা রাজমিস্ত্রির কাজের ওই কিশোর গা ঢাকা দিলেও তাকে গ্রে’প্তারের জো’র চেষ্টা চলছে বলে জানান ওসি।

Facebook Comments
custom_html_banner1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *