1. ashrafali.sohankg@gmail.com : aasohan :
  2. alireza.kg2014@gmail.com : Ali Reza Sumon : Ali Reza Sumon
  3. hrbiplob2021@gmail.com : News Editor : News Editor
রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ০৮:১৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:-
জাতীয় স্লোগান হিসেবে ‘জয় বাংলা’ ব্যবহারের নির্দেশঃ হাইকোর্ট ফুটবলে টানা দ্বিতীয়বার চ্যাম্পিয়ন করিমগঞ্জ বালিকা দল বাংলাদেশের সাফল্যের ‘উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত’ ওয়ালটন: জার্মান রাষ্ট্রদূত কিশোরগঞ্জে মুরগী সোহেলকে আটক করেছে র‍্যাব কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরে ৭ ব্যবসায়ীকে ৫৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত প্রথম আলো’র জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে হেনস্থা ও আটকের প্রতিবাদে কিশোরগঞ্জে মানববন্ধন শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজে বিশ্ব উচ্চ রক্তচাপ দিবস পালন শ্রমজীবী মানুষের পাশে কিশোরগঞ্জ জেলা মুক্তিযোদ্ধা যুব কমান্ড কিশোরগঞ্জে নকল সোনার বার নিয়ে দুই প্রতারক গ্রেফতার ৩৬০ জন আউলিয়াগণের পবিত্র নাম মোবারক ২৫ এপ্রিল থেকে খুলছে দোকানপাট ও শপিংমল

বিদায়ী বছরে কুড়িগ্রাম জেলা পুলিশের প্রশংসনীয় সাফল্য

রিপোর্টার:
  • সর্বশেষ আপডেট : শনিবার, ৪ জানুয়ারী, ২০২০
  • ৬১ সংবাদটি দেখা হয়েছে

এজি লাভলু, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: ২০১৯ সালের প্রশংসনীয় সাফল্য কুড়িগ্রাম জেলা পুলিশের। ২০১৯ ইং সালের ২৩ জুন পুলিশ সুপার পদে মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান (বিপিএম) এর যোগদানের পর থেকে জেলার মাদক, চোরাকারবারীসহ সকল অপরাধীদের আতংকে পরিনত হয়েছে। ইতিমধ্যে নাগেশ্বরী ও ফুলবাড়ীর প্রায় দেড় শতাধিক মাদক ব্যবসায়ী তার কাছে আত্মসমর্পন করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। সম্প্রতি পুলিশ কনস্টবল নিয়োগ স্বচ্ছতার সাথে সম্পন্ন করা, শীতে অসহায় দারিদ্র,প্রতিবন্ধী ও দলিত সম্প্রদায়ের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ এবং চিলমারীর শিশু সুরভীর শিকল মুক্তি ও চিকিৎসার দায়িত্ব নেওয়া,বন্যায় ত্রান বিতরন,লবনগুজব মোকাবেলা,মহান বিজয় দিবসে পুলিশ মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনাসহ নানা কাজে জনমনে ব্যপক প্রশংসিত হয়েছেন পুলিশ সুপার মোহাম্মাদ মহিবুল ইসলাম খান বিপিএম।

২০১৯ সালের জেলা পুলিশের সাফল্য গুলো:
মাদক উদ্ধার: জেলা পুলিশ কুড়িগ্রাম বিভিন্ন সময় অভিযান পরিচালনার মাধ্যমে ২০১৯ সালে ৭১৩ কেজি গাঁজা, ৪৪৪৫১ পিস ইয়াবা, ৪২৩.৯০ গ্রাম হেরোইন, ১৮০১ বোতল ফেন্সিডিল, ১২৬ বোতল বিদেশী মদ, ২১১ লিটার দেশী মদ এবং গাঁজার গাছ ৭টি উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে।

নারী ও শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা: নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে অত্র জেলায় নিয়মিত কমিউনিটি পুলিশিং ও ওপেন হাউজ ডে সভার আয়োজন করা হয়।আয়োজিত সভায় সমাজের গণ্যমান্য ব্যক্তিসহ সকলকে নারী ও শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে সচেতনতা বৃদ্ধি করার কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। এছাড়াও প্রতিটি এলাকায় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গদের নিয়ে একটি করে নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটি গঠন করা হয়েছে।

মামলা নিষ্পত্তির হার: অত্র জেলায় রুজুকৃত মামলা নিষ্পত্তির জন্য মামলা মনিটরিং সেল গঠন করা হয়েছে। পুরাতন ও জটিল মামলাগুলি মনিটরিং সেল এর মাধ্যমে পর্যালোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করায় অতি দ্রুত মামলা নিষ্পত্তি সম্ভব হচ্ছে।

ট্রাফিক ব্যাবস্থাপনা ও জরিমানা আদায়: ট্রাফিক আইন ভঙ্গ করার অপরাধে কুড়িগ্রাম জেলায় মোট ৭৬৫২টি মামলা এবং ২৭,৪১,৯০০ (সাতাশ লক্ষ একচলি­শ হাজার নয়শত) টাকা জরিমানা আদায়পূর্বক সরকারি কোষাগারে জমা প্রদান করা হয়েছে।

নিখোঁজ নারী, শিশু ও নিখোঁজ ব্যক্তি উদ্ধার: জেলায় ২০১৯ সালে নারী ও শিশু অপহরণের ঘটনায় মোট ৪৪টি মামলা রুজু হয়। সংশি­ষ্ট মামলাগুলির তদন্তকারী কর্মকর্তা অপহরণকৃত সকলকেই উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছেন।

ক্লু-লেস, চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলা ডিটেকশন: ক্লু-লেস,চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলা যেমন, নাগেশ্বরী থানার মামলা নং-১৬ তাং ১০.০৯.২০১৯ইং, ধারা-৩০২/৩৪ পেনাল কোড এর হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার এবং মামলার রহস্য উদঘাটন হয়েছে। মামলা নং ৩৭ তাং ২৭.০৯.২০১৯ইং ধারা-৩০২/৩৪ পেনাল কোড এর ঘটনাটিও একটি ক্লুলেস ঘটনা। প্রযুক্তিগত সহায়তা প্রদানের মাধ্যমে ঘটনার সাথে জড়িত আসামীদের গ্রেফতার করত; মামলার মূল রহস্য উদঘাটন সম্ভব হয়েছে।রৌমারী থানার মামলা নং-১২,তাং ১৯.১০.২০১৯ইং, ধারা- ধারা-৩০২/৩৪ পেনাল কোড এর ভিকটিম একজন স্কুল ছাত্রী।গত ১৯.১০.২০১৯ইং বিকেল ৩ঘটিকার পর চর ঘুঘুমারী গ্রামের কাশিয়াবাড়ীর ভিতর ভিকটিম এর ওড়নার একপ্রান্ত দিয়ে গলা পেচানো এবং অপর প্রান্ত দিয়ে মুখ পেচানো এবং এবং স্কুল ড্রেসের বেল্ট দিয়ে পিছনে দু’হাত বাধা মৃত অবস্থায় পাওয়ায় বর্ণিত সংবাদ রৌমারী থানায় আসার পর পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। রৌমারী থানায় মামলা নং-১২, তাং ১৯.১০.২০১৯ইং ধারা-৩০২/৩৪ পেনাল কোড র“জু হয়।মামলা হওয়ার পর কোন তথ্য,উপাত্ত পাওয়া না গেলেও প্রযুক্তিগত তথ্যের সহায়তায় ঘটনার সাথে জড়িত আসামী নুরনবী (২১),পিতা- মৃত জোনাব আলী এবং হামিদুল ইসলাম (২০), পিতা- হাসেন আলী, উভয় সাং চর ঘুঘুমারী,থানা উলিপুর। তাদের দু’জনকে গ্রেফতার করা হয়। আসামীদের জিজ্ঞাসাবাদে তারা ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে এবং বিজ্ঞ আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করে। উলিপুর থানার মামলা নং-২৮, তাং ২২.১০.২০১৯ইং, ধারা-৩০২/৩৪ পেনাল কোড এর ঘটনাটিও একটি ক্লুলেস ঘটনার মূল রহস্য উদঘাটন এবং আসামীরা গ্রেফতার হয়েছে।

অপরাধ সংস্পর্শে আসা পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা: বিভিন্ন অপরাধের সংস্পর্শে আসা পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে।এর মধ্যে এক এসআই (নিরস্ত্র) ও এক এএসআই (নিরস্ত্র) এবং একজন কনস্টবলের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয়ের অভিযোগে ফৌজদারী মামলা রুজু হয়। তাদেরকে বিভাগীয় শাস্তি প্রদানের নিমিত্তে বিভাগীয় মামলা রুজু করা হয়েছে। এছাড়াও ২জন কনস্টেবল ফৌজদারী মামলায় আটক হলে তাদের সাময়িক বরখাস্ত করে বিভাগীয় মামলা রুজু করা হয়েছে।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান বিপিএম জানান, কুড়িগ্রাম জেলাকে মাদক মুক্ত করতে জেলা পুলিশ সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।জনগণ যেন হয়রানির স্বীকার না হয়, সে ব্যাপারে জেলার প্রত্যেকটি থানায় নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। মুজিববর্ষ ২০২০ কে সামনে রেখে জেলা পুলিশ কুড়িগ্রামকে আরো বেশী জনমুখী করা হবে, থানায় সেবার মান বৃদ্ধি, পুলিশ চেকপোষ্ট ও বক্স স্থাপন, নারী শিশু ডেস্ক, মুক্তিযোদ্ধা ডেস্ক স্থাপনসহ মাদক ও জুয়ার বিরুদ্ধে অভিযান জোড়দার করা হবে।

Facebook Comments Box

খবরটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরও খবর

All rights reserved © 2021 Newsmonitor24.com
Site design by Le Joe