বি’শ্ববিদ্যালয়ের ছা’ত্রীকে ইফতারে ডেকে নিয়ে ধ’র্ষণ করল, স্বামী-স্ত্রী আ’টক

সিলেটের জৈ’ন্তাপুরে ইউনিভা’র্সিটির এক শিক্ষা’র্থী ধ’র্ষণের শিকার হয়েছেন। এ ঘটনায় এক দ’ম্পতিকে আ’ট’ক করেছে পু’লিশ।

ঘটনার শিকার শিক্ষার্থী সমাজ কল্যান বিভাগে অনার্স দ্বিতীয় বর্ষ, পাশাপাশি সিলেট লি’ডিং ইউনিভা’র্সিটিতে এলএলবি প্রথম সেমিস্টারে পড়েন।

মা’মলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ওই ছা’ত্রী করো’নাভাই’রাসের কারণে নিজ বাড়িতে অ’বস্থান করছিলেন৷

আ’সামিরা ভি’কটিমের একই গ্রামের বাসিন্দা ও ২নং আ’সামি সুমি বেগম স’ম্পর্কে ভিক’টিমের খালা হয়।

সেই সুবাদে ভিকটিম সিলেট থেকে বাড়িতে আসা যাওয়া করলে আ’সামি সুমি ভি’কটিমকে তার বাড়িতে ডেকে নিয়ে গল্প গু’জব করে।

স’ম্পর্কে খালা হওয়ায় ভি’কটিম সরল বিশ্বা’সে তার বাড়িতে যাওয়া আসা করত।

গত ২ মে সুমি ভি’কটিমকে ইফতারের দাওয়াত দেন। কিন্তু ভি’কটিম যেতে রাজী ছিলেন না।

তখন সুমি ভি’কটিমের মা-বাবাকে বলায় ইফতারের কিছুক্ষণ আগে তাদের বাড়িতে যায়।

ইফতার শেষে কিছু সময় বি’শ্রাম করার পরে রাত অনুমানিক ৮টার দিকে কৌশলে

চায়ের সাথে নে’শা জাতীয় কিছু মিশিয়ে ভি’কটিমকে খেতে দেয় সুমি।

চা খাওয়ার পর অ’চেতন হয়ে পড়লে সুমি বেগমের সহায়তায় তার স্বা’মী কয়েছ আহম’দ

ভিকটিমকে ধ’র্ষণ করে এবং উল’ঙ্গ অবস্থায় মোবাইলে ভিকটিমের ভিডিও ধারণ করে৷

এরপর ভি’কটিমের জ্ঞা’ন ফিরিলে আ’সামি কয়েছ আহম’দকে পাশে দেখতে পায়। এ

সময় ভিকটিম চি’ৎকার করিলে আ’সামি কয়েছ মুখ চেপে ধরে।

ধ’স্তাধ’স্তির পর সেখান থেকে মুক্ত হয়ে তার মা-বাবাকে সব জানায়। তারা দ্রুত

আ’সামিদের বাড়িতে যান এবং ঘটনা বি’স্তারিত বলেন।

এ সময় ভি’কটিমের মা কৌশলে আ’সামির মোবাইল সংগ্রহ করে। ভি’কটিম তার

আ’ত্বীয়-স্বজনের পরাম’র্শে ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতা’লের ওসিসি বিভাগে ভর্তি হয়ে চিকি’ৎসা নি’চ্ছেন।

অন্যদিকে জৈন্তাপুর মডেল থা’না পু’লিশ বিভিন্ন স্থানে অ’ভিযান পরিচালনা করে র‌্যা’­

ব-৯ এর সহযোগিতায় শুক্রবার রাত দেড়টায় সিলেট থেকে কয়েছ আহম’দ (৩৫) ও তার স্ত্রী’ সুমি বেগমকে (৩০) আ’ট’ক করে৷

জৈ’ন্তাপুর মডেল থা’নার অফিসার ইনচা’র্জ শ্যামল বনিক আ’ট’কের বিষয় নিশ্চিত করেব।বলেন আ’সামি এই জঘন্য ঘটনার কথা স্বী’কার করেছেন। এ ঘটনায় তার স্ত্রী’ তাকে

সহযোগীতা করেছেন বলে জানিয়েছেন। আম’রা তাকে আ’ট’ক করে ধ’র্ষণ মা’মলায়।গ্রে’ফতার দেখিয়ে আ’দালতে পাঠিয়েছি৷ আ’দালতের কাছে দৃ’ষ্টান্তমূলক শা’স্তির দাবি

Facebook Comments
custom_html_banner1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *