1. ashrafali.sohankg@gmail.com : aasohan :
  2. alireza.kg2014@gmail.com : Ali Reza Sumon : Ali Reza Sumon
  3. hrbiplob2021@gmail.com : News Editor : News Editor
মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৩৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:-
জাতীয় স্লোগান হিসেবে ‘জয় বাংলা’ ব্যবহারের নির্দেশঃ হাইকোর্ট বউ শ্বাশুড়ির ঝগড়ায় ছেলের আত্মহত্যা কিশোরগঞ্জ জেলা টিসিবি ডিলার এ্যাসোসিয়েশন’র সভাপতি আঃ হেকিম ও সাধারণ সম্পাদক রতন কিশোরগঞ্জে পরকীয়ার জেরে হত্যা; ৪৮ ঘন্টার মধ্যে চার্জশিট দাখিল তাড়াইলে ডা.মমিন ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন শোলাকিয়া জঙ্গি হামলায় নিহতদের স্মরণে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন চিকিৎসকের ফেসবুক পোস্টে অজ্ঞাত রোগীর সন্ধান পেলো স্বজনরা পদ্মা সেতু উদ্বোধন আনন্দের জুয়ার কিশোরগঞ্জে তাড়াইলে আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আনন্দ মিছিলের পরিবর্তে ত্রাণ বিতরণ কিশোরগঞ্জে বন্যা কবলিত এলাকায় ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার দুর্যোগ মোকাবিলায় সরকার আগে থেকেই প্রস্তুত- মো.খলিলুর রহমান

যে দেশটিতে রয়েছে মাত্র ২টি মসজিদ।

রিপোর্টার:
  • সর্বশেষ আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট, ২০২০
  • ১৭৪ সংবাদটি দেখা হয়েছে

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সবুজে ঘেরা আর পাহাড়-পর্বতবেষ্টিত দেশ লাওস। লাওসের নাগরিকদের সংক্ষেপে লাও বলা হয়। দেশটির ৮৫% মানুষ বৌদ্ধ ধ’র্মে বিশ্বাসী। বাকিরা ভিন্ন ভিন্ন ধর্মের। এশিয়ার ম’ধ্যে লাওস একমাত্র দেশ, যেখানে মুসলিম জনগোষ্ঠীর বসবাস সবচে কম এবং তাদের সংখ্যা ৮০০ জনের মতো।

পুরো লাওসে মাত্র দু’টি মসজিদ আছে। দু’টোই রাজধানী ভিয়েনতিয়েনে। একটির নাম ভি’য়েনতিয়েন জামে মসজিদ, অপরটির নাম আল আ’জহার মসজিদ, যেটাকে স্থানীয়ভাবে ‘মসজিদ অব কম্বোডিয়া’ বলে ডাকা হয়।

রাজধানী ভিয়েনতিয়েনের বুক চিড়ে বয়ে চলেছে মেকং নদী। এই নদীর তীর থেকে কিছুটা দূরে ভি’য়েনতিয়েন জামে মসজিদের অবস্থান। এর পাশে ব্রু’নেই দূতাবাসের অফিস। এলাকার নাম বান সিং ওয়ান। জমি কিনে পাকিস্তান ও ভারতের মুসলমানরা মসিজদটি নির্মাণ করেন ১৯৭০ সালে।

মসজিদ পরিচালনার জন্য রয়েছে একটি কমিটি, এই ক’মিটি মসজিদ পরিচালনার যাবতীয় ব্যয়, ই!মাম-মুয়াজ্জিনের বেতন ইত্যাদি নির্বাহ করেন। ভিয়েততিয়েন জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন বাংলাদেশি। নাম হাফেজ হাসান মাহমুদ।

তিনি কিশোরগঞ্জের লোক।৪৮০ মিটারের দোতলা ভিয়েনতিয়েন জা’মে মসজিদে একত্রে দেড়শ’ মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারেন। মসজিদের ভেতরে না’রীদের নামাজের ব্যবস্থা রয়েছে।

তা পর্দা দিয়ে আ’লাদা করা। প্রতি রমজানে শতাধিক রোজাদারকে ভিয়েনতিয়েন মসজিদে ই’ফতার করানো হয় ঈদের নামাজের সময় মসজিদে জা’য়গা হয় না, তখন মসজিদসংলগ্ন রাস্তায় নামাজ আদায় করেন মুসলমানরা।

আল আজহার মসজিদটি চার মাইল দূরে পোন সা বাথ থা’ইয়ে অবস্থিত। মসজিদটি মালয়েশিয়া, কম্বোডিয়া, ইন্দোনেশিয়া এবং ব্রুনেইয়ের মুস’লমানরা নির্মাণ করেন ১৯৮৬ সালে। এখানে বাচ্চাদের জন্যে বৈকালিক ইসলামি শিক্ষার ব্যবস্থা রয়েছে।এই দুই মসজিদ ছাড়া কয়েকটি নামাজের জায়গা রয়েছে।

সেখানে শুধু অফিস টাইমে নামাজ আদায় করা হয়। পৃথিবীর অনেক দেশে মসজিদে উচ্চস্বরে আজান নিষিদ্ধ হলেও লাওসের দুই মসজিদেই মাইকে উ’চ্চস্বরে আজান দেওয়া হয়।বিশ শতকের প্রথম দি’কে দক্ষিণ ভারতের তামিলনাড়ু থেকে মুসলমানরা ফ্রান্সের কলোনী থাকা অবস্থায় লাওসের ভিয়েনতিয়েনে শ্রমিক হিসেবে যান।

এখন তাদের উত্তরাধিকাররা ব্যবসায় জড়িত। অন্যদিকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় পাকিস্তানের পাখতুন প্রদে’শের অনেক মুসলমান ব্রিটিশ সে’নাবাহিনীর হয়ে বার্মায় যুদ্ধ করেন। বার্মা থেকে তাদের অনেকে লাওসে যান এবং সেখানেই স্থায়ী বসবাস শুরু করেন।১৯৫৩ সালে লাওস ফ্রান্সের কাছ থেকে স্বাধীনতা লাভ করে।

এর কিছুদিন পর আমেরিকার সঙ্গে যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে। চীন ও ভিয়েতনামের সহযোগিতায় ক’মিউনিস্ট নেতা পেথেট লাও দীর্ঘ যুদ্ধে আমেরিকাকে ফিরে যেতে বাধ্য করে এবং গণপ্রজাতন্ত্রী লাওস ঘোষণা করে।১৯৬০ সালের দিকে লা’ওসে এখনকার চেয়ে অনেক বেশি মুসলমানের বসবাস ছিল।

কিন্তু যুদ্ধে মুসলমানেরা ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হন এবং অনেকে দেশ ছেড়ে অন্য দেশে আশ্রয় গ্রহণ করেন।স’ম্প্রতি তামিল, পাখতুন ও কম্বোডিয়ান বংশোদ্ভূত মুসলমানদের সমন্বয়ে অ্যাসোসিয়েশন অ’ব লাওস টু ওভারসিজ মুসলিম কমিউনিটি নামে একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

যার প্র’ধান হ’লেন হাজি মুহাম্মদ রফিক। এ সংগঠন ধর্মীয় নানা বিষয়ে মুসলমানদের পরামর্শ ও সাহায্য-সহযোগিতা করে থাকেন।লাওসের মুসলমানরা ধর্ম-কর্ম পালনসহ সবকিছুতে সরকারের পূর্ণ সহযোগিতা ও সমর্থন পান। অন্য ধর্মাবলম্বীদের সঙ্গেও তাদের চমত্কার সম্পর্ক বিদ্যমান।

Facebook Comments Box

খবরটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরও খবর

All rights reserved © 2021 Newsmonitor24.com
Theme Customized BY IT Rony