1. ashrafali.sohankg@gmail.com : aasohan :
  2. alireza.kg2014@gmail.com : Ali Reza Sumon : Ali Reza Sumon
  3. hrbiplob2021@gmail.com : News Editor : News Editor
শনিবার, ০৮ অক্টোবর ২০২২, ১২:৩৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:-
জাতীয় স্লোগান হিসেবে ‘জয় বাংলা’ ব্যবহারের নির্দেশঃ হাইকোর্ট পাগলা মসজিদের এবার মিলল ১৫ বস্তায় ৩ কোটি ৮৯ লাখ ৭০ হাজার ৮৮২ টাকা কিশোরগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি’র দায়ীত্ব থেকে শরীফকে অব্যাহতি আনন্দ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে শেষ হলো SSNIMC এর সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতা আপনি কি রোগে ভুগছেন? দেখে নিন কোন রোগের জন্য কোন ডাক্তার দেখাবেন- কিশোরগঞ্জে উন্নত জাতের কচু ফসল ও উৎপাদন কলাকৌশল শীর্ষক প্রশিক্ষণ নারী সাংবাদিক মিতু’র বাড়ির রাস্তায় ঘর নির্মাণ, বাঁধা দেওয়ায় প্রাণনাশের হুমকি নিকলীতে প্রভাবশালীর হাতে সাংবাদিক লাঞ্ছিত থানায় অভিযোগ নান্দাইলে টাকা দিল দেড় লক্ষাধিক,পেল না সেচ সংযোগ ৪৮ বোতল বিদেশী মদ ও গাঁজাসহ তাড়াইল থানা পুলিশের হাতে আটক ৫ “মেঘ বর্ষণ” সমাজ কল্যাণ সংস্থা’র মেধাবী ও অসহায়দের আর্থিক সহায়তা প্রদান

হেলপার শিপনকে মোবাইল ফোনের জন্য হত্যা করা হয়!

রিপোর্টার:
  • সর্বশেষ আপডেট : মঙ্গলবার, ২৯ অক্টোবর, ২০১৯
  • ১৭৪ সংবাদটি দেখা হয়েছে

এজি লাভলু, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: কুড়িগ্রাম কেন্দ্রীয়
বাসটার্মিনালে চাঞ্চল্যকর কিশোর হেলপার শিপন হত্যার রহস্য
উন্মোচিত হয়েছে। একটি অ্যান্ড্রয়েড মোবাইলের কারণে তাকে
তারই সহকর্মী সোহেল ইসলাম(১৯) নিষ্ঠুরভাবেহত্যা করে বলে তদন্তে
বেরিয়ে এসেছে।

আজ (২৯ অক্টোবর)এক প্রেস ব্রিফিংয়ে কুড়িগ্রামের পুলিশ সুপার
মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান বিপিএম এ কথা বলেন। এ সময় তার
সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (পুলিশ সুপার
পদোন্নতিপ্রাপ্ত) মেনহাজুল আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর
সার্কেল) উৎপল রায়, সদর থানার ওসি মাহফুজার রহমান প্রমুখ।
পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান বিপিএম লিখিত বক্তব্যে
জানান, চলতি বছরের ২৯ সেপ্টেম্বর কিশোর হেলপার শিপনের লাশ বাসের
ভেতরে পাওয়া যায়। এ ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসেবে অপর বাসের হেলপার
সোহেল ইসলাম, শহিদুল ও মোস্তফাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।
গতকাল রবিবার মূল আসামি কুড়িগ্রাম শহরের কাশিয়াবাড়ির হাল
মাঝিপাড়ার গোলজার হোসেনের ছেলে সোহেল ইসলাম (১৯)
কুড়িগ্রাম চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মোবাইল
চুরির উদ্দেশে হত্যার ঘটনা ঘটিয়েছে বলে স্বীকারোক্তিমূলক
জবানবন্দি প্রদান করে।

প্রেস ব্রিফিংয়ে বলা হয়, ঘটনার রাতে কেন্দ্রীয় বাসটার্মিনালে
অবস্থিত ইদুল মিয়ার হোটেলে একসঙ্গে রাতের খাবার খান নিহত
শিপন, তার বড়ভাই রিপন ও হত্যাকারী সোহেল ইসলাম। পরে ভোররাত ৪টার
দিকে অ্যান্ড্রয়েড মোবাইলটি চুরির উদ্দেশে ঘুমন্ত শিপনের বাসে
ওঠে সোহেল ইসলাম। পকেটে অবস্থিত মোবাইলটি বের করতে গেলে
টের পায় শিপন।এ নিয়ে দুজনের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। পরে ক্ষিপ্ত হয়ে সোহেল ইসলাম
শিপনের গলায় গামছা পেঁচিয়ে তাকে চেপে ধরে। এ সময় নিঃশ্বাস
বন্ধ হয়ে কিশোর শিপনের মৃত্যু হয়। ঘটনার পর মোবাইলটি নিয়ে
বাস থেকে নেমে পালিয়ে যায় সোহেল ইসলাম।

Facebook Comments Box

খবরটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরও খবর

All rights reserved © 2021 Newsmonitor24.com
Theme Customized BY IT Rony