১৪৩ বছরেও ক্রিকেট ইতিহাসের যে বিশ্বরেকর্ড শুধুমাত্র আশরাফুলের

রেকর্ড গড়ে রেকর্ড ভাঙে। বলা হয়ে থাকে ‘রেকর্ড তৈরী হয় নতুন রেকর্ড গড়ার জন্যই’। ক্রিকেট এমন রেকর্ড রয়েছে যেগুলো একবার কেউ গড়েছে পরবর্তীতে ভেঙেছেন নতুন কেউ।

কিন্তু এমন কিছু রেকর্ড রয়েছে যা রয়ে গেছে অক্ষয়। এমনি দুইটি বিশ্বরেকর্ড রয়েছে বাংলাদেশের জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আশরাফুলের দখলে।

৬ সেপ্টেম্বর ২০০১। সবচেয়ে বম বয়েসে একই দিনে দুটো রেকর্ড গড়েন বাংলাদেশ ক্রিকেটের বিস্ময় বালক মোহাম্মদ আশরাফুল। সেদিন সবচেয়ে কম বয়সি হিসেবে টেস্টে সেঞ্চুরি করেন তিনি সেই সাথে একই ম্যাচে যেটা সবচেয়ে কম বয়সী হিসেবে অভিষেক টেস্টে সেঞ্চুরির রেকর্ডও নিজের করে নেন অ্যাশ।

ক্রিকেটের বিবর্তনে এখন ২০ বছরের আগে জাতীয় দলে অভিষেক অনেকটাই অকল্পনীয়। সেখনে বড়জোড় অনূর্ধ্ব-১৯ খেলে কেউ দ্রুত খেলে ফেলতে পারে জাতীয় দলে সেক্ষেত্রেও কিন্তু বয়স হয়ে যাবে ১৮ এর বেশি।

তারও কম বয়সে যদি কারও অভিষেক হলে সেটা টেস্টে হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। আর যদি অভিষেক হয়েও যায় রেকর্ডটা ভাঙা সহজ হবে না। কারণ ওই বয়সে কারও পক্ষে টেস্টে সেঞ্চুরি করা অনেকটা অসাধ্য সাধন করেই দেখোনো।

আর এই অসাধ্যই সাধন করেছিলেন মোহাম্মদ আশরাফুল। কলোম্বোয় অভিষেকের ক্যাপ পরে সেই ম্যাচে লঙ্কানদের বিপক্ষে ১১৪ রানের দারুণ এক ইনিংস উপহার দিয়েছিলেন আশরাফুল।

সে সময় আশরাফুলের বয়স হয়েছিল ১৭ বছর ৬১ দিন তার এই রেকর্ডটি ১৯ বছর পেরোলেও ভাঙতে পারেনি কেউই। ৬ সেপ্টেম্বর ২০০১ সালে শ্রীলঙ্কার কলম্বোয় গড়া সেই রেকর্ড তাই টিকে যেতে পারে আরও ১০০ বছর।

আশরাফুলের আগে সর্বকনিষ্ঠ সেঞ্চুরিয়ান ছিলেন পাকিস্তানের সৈয়দ মুশতাক আহমেদ। ৮ ফেব্রুয়ারী ১৯৬১ সালে দিল্লিতে ভারতের বিপক্ষে ১৭ বছর ৭৮ দিনে এই শতক করেছিলেন তিনি। ৪০ বছর পর সেই রেকর্ড ভাঙেন আশরাফুল।

Facebook Comments
custom_html_banner1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *