1. ashrafali.sohankg@gmail.com : aasohan :
  2. alireza.kg2014@gmail.com : Ali Reza Sumon : Ali Reza Sumon
  3. hrbiplob2021@gmail.com : News Editor : News Editor
বুধবার, ১৬ জুন ২০২১, ০৭:৪৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:-
জাতীয় স্লোগান হিসেবে ‘জয় বাংলা’ ব্যবহারের নির্দেশঃ হাইকোর্ট ফুটবলে টানা দ্বিতীয়বার চ্যাম্পিয়ন করিমগঞ্জ বালিকা দল বাংলাদেশের সাফল্যের ‘উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত’ ওয়ালটন: জার্মান রাষ্ট্রদূত কিশোরগঞ্জে মুরগী সোহেলকে আটক করেছে র‍্যাব কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরে ৭ ব্যবসায়ীকে ৫৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত প্রথম আলো’র জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে হেনস্থা ও আটকের প্রতিবাদে কিশোরগঞ্জে মানববন্ধন শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজে বিশ্ব উচ্চ রক্তচাপ দিবস পালন শ্রমজীবী মানুষের পাশে কিশোরগঞ্জ জেলা মুক্তিযোদ্ধা যুব কমান্ড কিশোরগঞ্জে নকল সোনার বার নিয়ে দুই প্রতারক গ্রেফতার ৩৬০ জন আউলিয়াগণের পবিত্র নাম মোবারক ২৫ এপ্রিল থেকে খুলছে দোকানপাট ও শপিংমল

৩৫০ বার ‘ধ’র্ষণ’ ক’রেছেন রঞ্জিত

রিপোর্টার:
  • সর্বশেষ আপডেট : সোমবার, ১৮ মে, ২০২০
  • ৩৮ সংবাদটি দেখা হয়েছে

আধখোলা জামা’র ফাঁক দিয়ে উঁকি দেওয়া লকেট যেন বাড়িয়ে দিত অভিনীত খলচরিত্রের ক্রূরতা। পর্দায় মোট ৩৫০ বার ‘ধ’র্ষণ’ ক’রেছেন তিনি। ম’দ্যপান করেননি, এ রকম ফিল্ম খুঁজে পাওয়া যায় না। অথচ ব্য’ক্তিগত জীবনে ছিলেন একনিষ্ঠ নিরামিষাশী। যথাসম্ভব দূ’রে থাকতেন সব রকম নে’শা থেকেও। খলনায়ক রঞ্জিতের পর্দা ও ব্যাক্তিগত জীবন ছিল স’ম্পূর্ণ বিপরীত মেরুর।

রঞ্জিতের আ’সল নাম গোপাল বেদী। জ’ন্ম ১৯৪২ সালের ১২ সেপ্টেম্বর। হিন্দি ছবির ভক্ত রঞ্জিত এত বার দেব আনন্দের ‘গাইড’ এবং ‘হাম দোনো’ দেখেছিলেন যে, ছবি দু’টির প্রতিটি সংলাপ তাঁর মুখস্থ হয়ে গিয়েছিল।

ছবি দে’খতে ভাল লাগলেও রঞ্জিত প্রথমে চেষ্টা করেছিলেন বিমানবা’হিনীতে যোগ দেওয়ার। ন্যাশনাল ডিফেন্স অ্যাকাডেমিতে তাঁর প্রশিক্ষণও শুরু হয়েছিল। কিন্তু খোদ প্রশিক্ষকের মেয়ের স’ঙ্গে ই তিনি স’স্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। ফলে শৃ’ঙ্খলাভ’ঙ্গের দায়ে অকালেই ফুরিয়ে গেল প্রশিক্ষণের মেয়াদ। জীবনের এ রকম এক উদ্দেশ্যহীন সময়ে তাঁর স’ঙ্গে আলাপ হয় রাজস্থানের কোটার বাসিন্দা রঞ্জিত সিংহ ওরফে রনি-র। বলিউড ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির স’ঙ্গে রনির ভাল স’স্পর্ক ছিল।

রনির ভরসায় মুম্বাই আসেন রঞ্জিত। বাড়িতে ছবিতে অভিনয়ের কথা বলেননি। বলেছিলেন, তিনি বেড়াতে যাচ্ছেন। মুম্বাইয়ে তারকা ব্য’ক্তিত্বের স’ঙ্গে আলাপ হয়। রঞ্জিত সুযোগ পান মোহন সেহগলের ‘সাওন ভাদো’ ছবিতে। তার পরের বছরই দিলীপ কুমা’র তাঁকে সুযোগ দেন ‘রেশমা অউর শেরা’ ছবিতে।

দিলীপ কুমা’র তাঁকে প’রামর্শ দেন নাম পাল্টানোর। নতুন পরিচয়ের জন্য তিনি বেছে নেন রঞ্জিত সিংহের নাম-ই। গোপাল বেদী থেকে তাঁর নতুন নাম হয় ‘রঞ্জিত’। পরে বলেছিলেন, তিনি কোনওদিন ভাবতেও পারেননি এই চেহারা নিয়ে অভিনয় করবেন! রনি ওরফে রঞ্জিত না থাকলে তাঁর অভিনেতা হওয়া হত না। মনে করেন গোপাল বেদী ওরফে রঞ্জিত।

১৯৭১ সালেই মু’ক্তি পায় ‘শর্মিলি’। এই ছবির প্রিমিয়ারে গিয়ে লজ্জায় প্রায় মাথা কা’টা যায় রঞ্জিতের। ছেলেকে পর্দায় মেয়েদের শ্লী’লতাহা’নি ক’রতে দেখে কা’ন্নায় ভে’ঙে পড়েন রঞ্জিতের মা। শেষে রঞ্জিতের সহঅভিনেত্রী রাখি এসে তাঁকে বোঝান, তাঁর ছেলে আ’সলে অভিনয়-ই ক’রেছেন! ধীরে ধীরে রঞ্জিতের মা বুঝে যান, প্রতি ছবির শেষেই তাঁর ছেলেকে পু’লিশ বা নায়কের হাতে প্রহৃত হতে হবে। তিনি আত্মীয়দের স’ঙ্গে ছেলের ছবি দে’খতে গেলে শেষ অবধি দে’খতেন না। বলতেন, ছবির শেষ অংশ অন্য এক দিন দেখবেন। পরে এক সাক্ষাৎকারে মজা করে এ কথা বলেন রঞ্জিত নিজে।

ডাকু অউর জওয়ান’ ছবি মু’ক্তি পেয়েছিল ১৯৭৮ সালে। রঞ্জিতের কথায়, এই ছবিতে রীনা রায়ের স’ঙ্গে তাঁর ধ’র্ষণ-দৃ’শ্য ছিল বি’পজ্জনক। চার দিকে জ্বলন্ত প্রদীপের মধ্যে শু’টিং ক’রতে হয়েছিল। রঞ্জিতের মনে পড়ে নবাগতা মাধুরী দীক্ষিতের কথাও। ১৯৮৯ সালে ‘প্রেম প্রতিজ্ঞা’ সিনেমায় মাধুরীর স’ঙ্গে তাঁর ধ’র্ষণের দৃ’শ্য ছিল। শু’টিংয়ের পরেও নাকি মাধুরীর আত’ঙ্কের ঘোর কাটেনি।

অভিনেত্রী মহলের বাইরেও তাঁকে ভ’য় পেতেন নারীরা। ১৯৭৭ সালে মু’ক্তি পেয়েছিল ‘জমানত’। ছবিতে কেউটে সাপ নিয়ে শট দিতে হয় রঞ্জিতকে। যদিও সাপের দে’হ থেকে বি’ষ বের করে নেওয়া হয়েছিল আগেই, তবু শট দেওয়ার পরে এক চিকি’ৎসককে ডাকা হয়, রঞ্জিতকে পরীক্ষা করার জন্য। কারণ শু’টিংয়ের মধ্যে বির’ক্ত সাপটি বেশ কয়েক বার ছোবল দিয়েছিল রঞ্জিতকে।

কিন্তু রঞ্জিতকে দে’খতে হবে শুনে সেই মহিলা চিকি’ৎসক নাকি ভ’য়ে আসেনইনি। তাঁর দৃ’শ্য এলেই নাকি সেন্সর বোর্ডের এক নারী সদস্য রাগে আর ঘেন্নায় চোখ ব’ন্ধ করে ফেলতেন। লাম্পট্যকেও এতটাই বিশ্বা’সযোগ্যতার স’ঙ্গে পেশ ক’রতেন তিনি।কিন্তু সামান্যতম অস্বস্তিও কি হত না? রঞ্জিত জা’নিয়েছিলেন সময়ের স’ঙ্গে স’ঙ্গে তিনি সে সব কা’টিয়ে ফে’লে ছিলেন। বরং, উল্টোদিকে নায়িকার অস্বস্তি দূ’র ক’রতে তিনি তাঁদের কানে কানে বলে যেতেন, এর পর শটে কী কী ক’রতে হবে। মানে, কখন তাঁর চুল ধ’রে টানতে হবে, কখন তাঁর মুখকে ঠেলে সরিয়ে দিতে হবে, এ রকম নানা রকম প’রামর্শ দিতেন তিনি।

তবে শুধুই ঘৃণা নয়। ব্য’ক্তিগত জীবনে নারীদের ভালোবাসাও পেয়েছেন এই খলনায়ক। ১২ বছর লিভ ইন করার পরে বিয়ে করেছিলেন বান্ধবী পুষ্পাকে। কিন্তু দেড় বছর যেতে না যেতেই তাঁকে ছেড়ে পুষ্পা চলে যান। এর কয়েক বছর পরে রঞ্জিত ঠিক করেন তিনি ছবি পরিচালনা করবেন। ছবির নাম ঠিক হয় ‘কারনামা’। সে ছবিতে নবাগতা নাজনিন ওরফে অলকাকে তিনি নায়িকা করবেন বলে ঠিক করেন। কিন্তু শেষ অবধি প্রযোজকের চা’পে নবাগতার বদলে ছবিতে নিতে হয় ফারহা, কিমি কাতকর, বিনোদ খন্নার মতো তারকাদের।

ছবিতে সুযোগ না পেলেও অলকা হয়ে যান রঞ্জিতের ঘরনি। বাবা মায়ের প’রামর্শ ও সম্মতিতেই ১৯৮৬ সালে অলকাকে বিয়ে করেন রঞ্জিত। সুযোগ থাকা সত্ত্বেও তিনি বিয়ের পরে অন্য নারীদের স’ঙ্গে স’স্পর্কে লিপ্ত হননি বলে দা’বি রঞ্জিতের। স্ত্রীর প্রতি কমিটেড থাকতেই চেয়েছেন। রঞ্জিত-অলকার মেয়ে দিব্যাঙ্কা ফ্যাশন ডিজাইনার। ছেলে, চিরঞ্জীব ছবিতে অভিনয় করুন, সে রকমই ইচ্ছে রঞ্জিতের। তবে চিরঞ্জীব নিজে বেশি আগ্রহী ফর্মুলা ওয়ান রেসিংয়ে।

প্রায় পাঁচ দশক ধ’রে কয়েকশো ছবিতে অভিনয় করা সত্তরোর্ধ্ব রঞ্জিত এখনও কাজে’র জগতে সক্রিয়। পর্দার নিষ্ঠুর এই খলনায়ক ব্য’ক্তিগত জীবনে ভালোবাসেন বাগান ক’রতে, ছবি আঁকতে আর রান্না ক’রতে। নিজে নিরামিষ খেলেও প্রিয় জনদের জন্য জমিয়ে রান্না করেন বারবিকিউ চিকেন। আনন্দবাজার

Facebook Comments Box

খবরটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরও খবর

All rights reserved © 2021 Newsmonitor24.com
Site design by Le Joe