1. ashrafali.sohankg@gmail.com : aasohan : Ashraf Ali Sohan
  2. arsumon@gmail.com : arsumon :
রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩, ০৬:১৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:-
জাতীয় স্লোগান হিসেবে ‘জয় বাংলা’ ব্যবহারের নির্দেশঃ হাইকোর্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশে অবৈধ ইটভাটা; ১ লক্ষ টাকা জরিমানা নিকলীর সিংপুরে ভায়া পরীক্ষা ও ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত পাকুন্দিয়ায় ১০ হাজার কম্বল নিয়ে শীতার্তদের পাশে ছমির-হালিমা ট্রাস্ট কিশোরগঞ্জ জেলা রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনের ক্ষুদ্র প্রয়াস অস্ট্রেলিয়ায় পড়তে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের নিয়ে উন্মুক্ত সেমিনার অনুষ্ঠিত কিশোরগঞ্জে পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে ইটভাটাকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা কিশোরগঞ্জে শব্দদূষণ নিয়ন্ত্রণে সচেতনতামূলক প্রশিক্ষণ শসৈনইমেক হাসপাতাল কিশোরগঞ্জে চালু হলো কিডনি ডায়ালাইসিস ইউনিট বিজয় দিবসে কুলিয়ারচর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মুক্তিযোদ্ধা কেবিন ও প্যাথলজিক্যাল ল্যাব উদ্বোধন এনআরবিসি ব্যাংক উদ্যোক্তা সম্মাননা পেলেন আশরাফ আলী সোহান

পাগলা মসজিদের এবার মিলল ১৫ বস্তায় ৩ কোটি ৮৯ লাখ ৭০ হাজার ৮৮২ টাকা

রিপোর্টার:
  • সর্বশেষ আপডেট : শনিবার, ১ অক্টোবর, ২০২২
  • ২০১ সংবাদটি দেখা হয়েছে

কিশোরগঞ্জ সদরের হারুয়া এলাকায় নরসুন্দার তীরে প্রায় ১০ শতাংশ জমিতে অবস্থিত পাগলা মসজিদ। এ আলোচিত ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদের দানবাক্সে ১৫ বস্তায় ৩ কোটি ৮৯ লাখ ৭০ হাজার ৮৮২ টাকা পাওয়া গেছে।

জেলার ঐতিহাসিক এ মসজিদটিতে মোট আটটি দানবাক্স রয়েছে। প্রতি তিন মাস অন্তর অন্তর এই বাক্সগুলো খোলা হয়। তবে করোনার মহামারী শুরুর পর থেকে এ মসজিদের দানবাক্সগুলো খোলা হয়েছিল চার মাস পর পর। করোনার পর এবার তিন মাস ১ দিন পর দানবাক্সগুলো খোলা হয়েছে।

শনিবার ১ অক্টোবর সকাল পৌনে ৯ টার দিকে দানবাক্সগুলো খোলা হয়। আটটি দানবাক্সে ৩ মাসে এবার জমা পড়েছে ১৫ বস্তা টাকা।

দানবাক্স খোলা কমিটির আহবায়ক ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্টেট এ টি এম ফরহাদ চৌধুরী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, আটটি দানবাক্স খুলে ১৫ বস্তা টাকা পাওয়া গেছে।

প্রশাসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে এখন চলছে টাকা গণনার কাজ। এই কাজে মাদ্রাসার ১১২ জন ছাত্র, ব্যাংকের ৫০ জন স্টাফ, মসজিদ কমিটির ৩৪ জন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ১০ জন সদস্য অংশ নিয়েছেন।

মসজিদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা বীর মুক্তিযোদ্ধা শওকত উদ্দিন ভূঁইয়া জানান, পনের বস্তা টাকা পাওয়া গেছে। এখন চলছে গণনা। গণনার শেষে কী পরিমাণ টাকা, সোনা, রুপা বা বৈদেশিক মুদ্রা পাওয়া গেছে তা বলা যাবে।

এর আগে সর্বশেষ গত ২ জুলাই দানবাক্সগুলো খোলা হয়েছিল। তখন ৩ মাস ২০ দিনে এই দানবাক্সগুলো জমা পড়েছিল ১৬ বস্তা টাকা। সেই বস্তাগুলো মসজিদের দ্বিতীয় তলার মেঝেতে ঢেলে দিনভর গণনা শেষে ১৬টি বস্তায় পাওয়া গেছে ৩ কোটি ৬০ লাখ ২৭ হাজার ৪১৫ টাকা। এ ছাড়া জমা পড়েছিল বৈদেশিক মুদ্রা, সোনা ও রুপা।

টাকা ছাড়াও মসজিদে নিয়মিত হাঁস-মুরগি, গরু-ছাগলসহ বিভিন্ন ধরনের জিনিসপত্র দান করেন বিভিন্ন জেলা থেকে আসা অসংখ্য মানুষ।

মসজিদের পেশ ইমাম মুফতি খলিলুর রহমান জানান, প্রতিদিনই দেশের বিভিন্ন প্রান্তের অন্য ধর্মের মানুষ এসে দান করছে এই মসজিদে। যারা দান করতে আসেন তারা বলে থাকেন, এখানে দান করার পরে নাকি তাদের আশা পূরণ হয়েছে। আর এ বিষয়টির কারণেই এখানে দান করে থাকেন তারা।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম জানান, এই মসজিদের টাকা তেমন একটা খরচ হয়না। সামান্য কিছু ব্যয় হয় ঈমাম, মুয়াজ্জিনের বেতন, বিদ্যুৎ বিল, শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের করোনা ইউনিটের স্বেচ্ছাসেবকদেরকে সহায়তা প্রদান করা, আর ছোটখাট মেরামতের জন্য। বাকি টাকা ব্যাংকে অক্ষত রয়েছে।

তিনি আরো জানান, আন্তর্জাতিক মসজিদ এবং ইসলামিক কমপওয়া হয়েছে। তা তৈরিতে পরামর্শক নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি দিয়েছি, ইতিমধ্যে ১২টি প্রতিষ্ঠান দরপত্র জমা দিয়েছেন। তা মূল্যায়ন হয়েছে এখন তাদের কাছে আর্থিক প্রপোজাল চাওয়া হবে। এই পরামর্শকের মাধ্যমেই ঠিকাদার নিয়োগ এবং সুপারভিশনের কাজ করা হবে।

দানবাক্স খোলা দেখতে বিভিন্ন এলাকা হতে উৎসুক মানুষজন ভিড় করেছে মসজিদ কমপ্লেক্স এর বাহিরে। যদিও দানবাক্স খোলা এবং গণনার জায়গাটিতে সর্বসাধারণের প্রবেশ নিষেধ করেছে প্রশাসন।

 

খবরটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরও খবর